মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি)

অফিস পরিচিতিঃ

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি), তদানিন্তন পূর্বপাকিস্তান কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন নামে কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন অধ্যাদেশ, ১৯৬১ (ই.পি. অধ্যাদেশ XXXVII,১৯৬১) এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়। কর্পোরেশনটি ২০১৫ সালের ১৬ অক্টোবর প্রতিষ্ঠার ৫৪ তম বর্ষ পূর্ণ করেছে। সরকারের কৃষি খাতের অন্যান্য উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান হতে কার্যক্রমের দিক থেকে ভিন্নতর বিবেচিত হওয়ায় ১৯৭৫ সালে বিএডিসি’কে বাংলাদেশ কৃষি উপকরণ সরবরাহ এবং সেবা কর্পোরেশন (বিএআইএসএসসি) হিসেবে পুনঃনামকরণ করা হয়। কিন্তু ১৯৭৬ সালে বিএআইএসএসসি এর নাম পুনঃ পরিবর্তন করে বিএডিসি নাম পুনর্বহাল করা হয়। কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন একটি স্বায়ত্ব শাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিএডিসি’র ভিত্তি ঢাকা শহর কেন্দ্রিক হলেও এর সেবার পরিধি সমগ্র বাংলাদেশে বিস্তৃত। মাঠপর্যায়ের অফিসসমূহ উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত, এমনকি কোন কোন ক্ষেত্রে আরো প্রত্যন্ত এলাকায় অফিসের সুবিস্তৃত নেটওয়ার্ক রয়েছে।

 

কর্পোরেশনের সাধারণ ও প্রশাসনিক দিকনির্দেশনা এবং অন্যান্য বিষয়াবলী সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে পরিচালনাপর্ষদ এর উপর ন্যস্ত। কর্পোরেশনের সাংগঠনিক কাঠামো ৫টি উইং এর সমন্বয়ে গঠিত। এগুলো হলো: বীজ ও উদ্যান, ক্ষুদ্রসেচ, সার ব্যবস্থাপনা, অর্থ এবং প্রশাসন। প্রশাসনিক উইং-টি চেয়ারম্যানের সরাসরি তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয় এবং অন্যান্য উইং গুলো সংশ্লিষ্ট সদস্য-পরিচালকের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়।

 

বিএডিসি’র উপর অর্পিত মৌলিক কাজগুলো হচ্ছে: সারা বাংলাদেশে কৃষি উপকরণ উৎপাদন, সংগ্রহ (ক্রয়), পরিবহন, সংরক্ষণ এবং বিতরণ ব্যবস্থাপনা টেকসই করা এবং অত্যাবশ্যকীয় কৃষি উপকরণ যেমন: বীজ, সার সরবরাহ এবং ভূপরিস্থ ও ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের মাধ্যমে কৃষকের জন্য সেচের সুযোগ সৃষ্টি করা।

 

বিএডিসি’তে কৃষি, প্রকৌশল, অর্থনীতি, ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি বিভিন্ন পেশার পেশাজীবীগণ একত্রে কাজ করছেন। সর্বমোট মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ছিল ২৫,৪৫১টি। কিন্তু ৯০ এর দশকের শুরুতে বিএডিসি হতে সারব্যবস্থাপনা কার্যক্রম প্রত্যাহার ও সেচকার্যক্রম বেসরকারীকরণ এবং স্বাভাবিক ও স্বেচ্ছা অবসর প্রদানের ফলে জনবল হ্রাস পায়।

 

এক গেজেট প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ১৯৯৯ সালে (বাংলাদেশ গেজেট ২২ নভেম্বর, ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত) কর্পোরেশনটি পুনর্গঠন করা হয় এবং মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন ও সেচের উপর কিছু নতুন কার্যক্রম প্রদান করা হয়। বিএডিসিতে নতুন নতুন প্রকল্প ও কর্মসূচির মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা প্রদান করে সেচ কাজে ভূপরিস্থ পানি ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি, জি২জি পদ্ধতির মাধ্যমে সারআমদানি, বীজ উৎপাদন কার্যক্রম শক্তিশালীকরণ সহ উচ্চফলনশীল জাতের বীজবর্ধন ও বিভিন্ন প্রকার প্রতিকূল সহিষ্ণু জাতের উৎপাদন বৃদ্ধির কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

(১) ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়নের লক্ষ্যে পানি সম্পদ উন্নয়নে প্রয়োজনীয় নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে সরকারকে পরামর্শ প্রদান।
(২) ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়নের লক্ষ্যে পানি সম্পদ উন্নয়ন:
-ভূ-গর্ভস্থ, ভূ-উপরিস্থ পানি সম্পদের জরিপ, অনুসন্ধান, তথ্য সংগ্রহ, তথ্য বিশ্লেষণ, পর্যবেক্ষন পরিবীক্ষণপূর্বক সুপারিশ প্রণয়ন ও প্রচার (ডেসিমিনেশন)। ক্ষুদ্রসেচ সংক্রান্ত তথ্যাদি জাতীয় পর্যায়ে পানি সম্পদ উন্নয়ন সংস্থাসমূহের সাথে বিনিময় এবং উপাত্ত-ভিত্তি (ডাটা বেইজ) উন্নয়নে অংম গ্রহণ;
-বিভিন্ন প্রকার মাটি/পরিবেশ উপযোগী ক্ষুদ্রসেচ প্রকল্প সমূহে পানি সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে কারিগরী তথ্য ও প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা;
-আর্সেনিকসহ অন্যান্য সেচজনিত পরিবেশদূষণ সমস্যার কারণ অনুসন্ধান এবং সমাধানের দিক নির্দেশনা প্রদান;
(৩) কৃষক, সেচ যন্ত্রের ডিলার ও মেকানিকদের জন্য সেচ যন্ত্র ব্যবহার ও রক্ষণাবেক্ষণ সংক্রান্ত উন্নতর প্রযুক্তি সম্প্রসারণের জন্য প্রশিক্ষন কর্মসূচী পরিচালনা;
(৪) সরেজমিন (অন-ফার্ম) দক্ষ সেচ ও পানি ব্যবস্থাপনা কর্মসূচী বাস্তবায়ন:
-পানি সম্পদের প্রাপ্যতা বিবেচনায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাথে যৌথভাবে সমস্ত অঞ্চলভিত্তিক ফসলের জাত ও উৎপাদন পদ্ধতি নির্ধারণসহ উপযুক্ত শস্যক্রম (ক্রপিং প্যাটার্ণ) সুপারিশকরণ ও কার্যক্রম গ্রহণ:
-সেচ ও পানি ব্যবস্থাপনা প্রযুক্তির সম্প্রসারণ;
-সেচ প্রযুক্তির প্রয়োজনীয়তা নির্ণয়;
-সব ধরণের সেচ যন্ত্রের কমান্ড এরিয়া উন্নয়ন;
-ফসলের সেচের পানি পরিমাণগত প্রয়োজনীয়তা নির্ণয়;
-ফসলের মাঠে পানির বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়নে কার্যক্রম (ডিজাইন, নির্মাণ ও উন্নত পানি বিতরণ ব্যবস্থা) গ্রহণ ও বাস্তবায়ন;
-অঞ্চলভিত্তিক ফসলে বৃষ্টির পানি এবং সম্পুরক সেচের সুষ্ঠু ও সর্বোত্তম ব্যবস্থা নিশ্চিত করার কার্যক্রম গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন;
-কৃষক পর্যায়ে বৃষ্টি ও সেচের পানির সমন্বিত ও পরিপুরক ব্যবহারের সর্বোত্তম পন্থা নিশ্চিত করা এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহায়তায় মানানসই শস্য পঞ্জিকা তৈরী;
-সেচ ব্যবস্থা সম্প্রসারণের জন্য কৃষকদের ব্যাপকভিত্তিক প্রশিক্ষন প্রদান;
(৫) সেচ এলাকা বৃদ্ধির জন্য স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প মূল্যায়ন ও দিকনির্দেশনা প্রদান;
(৬) সমন্বিত আঞ্চলিক কৃষি উন্নয়নে সেচ ব্যবস্থাপনা ও বাস্তবায়ন:
-কৃষক সংঘের সংগে সমন্বয় ও সহযোগিতার মাধ্যমে সেচ উন্নয়ন ও সেচ কার্যক্রম সম্প্রসারণ;
(৭) সেচ ব্যবস্থাপনার জরুরী সেবা প্রদান।

ক্ষুদ্রসেচউইং:

 

(১)

ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়নের লক্ষ্যে পানি সম্পদ উন্নয়নে প্রয়োজনীয় নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে সরকারকে পরামর্শ প্রদান।

(২)

ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়নের লক্ষ্যে পানি সম্পদ উন্নয়ন:

 

-ভূ-গর্ভস্থ, ভূ-উপরিস্থ পানি সম্পদের জরিপ, অনুসন্ধান, তথ্য সংগ্রহ, তথ্য বিশ্লেষণ, পর্যবেক্ষন পরিবীক্ষণপূর্বক সুপারিশ প্রণয়ন ও প্রচার (ডেসিমিনেশন)। ক্ষুদ্রসেচ সংক্রান্ত তথ্যাদি জাতীয় পর্যায়ে পানি সম্পদ উন্নয়ন সংস্থাসমূহের সাথে বিনিময় এবং উপাত্ত-ভিত্তি (ডাটা বেইজ) উন্নয়নে অংম গ্রহণ;

 

-বিভিন্ন প্রকার মাটি/পরিবেশ উপযোগী ক্ষুদ্রসেচ প্রকল্প সমূহে পানি সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে কারিগরী তথ্য ও প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা;

 

-আর্সেনিকসহ অন্যান্য সেচজনিত পরিবেশদূষণ সমস্যার কারণ অনুসন্ধান এবং সমাধানের দিক নির্দেশনা প্রদান;

(৩)

কৃষক, সেচ যন্ত্রের ডিলার ও মেকানিকদের জন্য সেচ যন্ত্র ব্যবহার ও রক্ষণাবেক্ষণ সংক্রান্ত উন্নতর প্রযুক্তি সম্প্রসারণের জন্য প্রশিক্ষন কর্মসূচী পরিচালনা;

(৪)

সরেজমিন (অন-ফার্ম) দক্ষ সেচ ও পানি ব্যবস্থাপনা কর্মসূচী বাস্তবায়ন:

 

-পানি সম্পদের প্রাপ্যতা বিবেচনায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাথে যৌথভাবে সমস্ত অঞ্চলভিত্তিক ফসলের জাত ও উৎপাদন পদ্ধতি নির্ধারণসহ উপযুক্ত শস্যক্রম (ক্রপিং প্যাটার্ণ) সুপারিশকরণ ও কার্যক্রম গ্রহণ:

 

-সেচ ও পানি ব্যবস্থাপনা প্রযুক্তির সম্প্রসারণ;

 

-সেচ প্রযুক্তির প্রয়োজনীয়তা নির্ণয়;

 

-সব ধরণের সেচ যন্ত্রের কমান্ড এরিয়া উন্নয়ন;

 

-ফসলের সেচের পানি পরিমাণগত প্রয়োজনীয়তা নির্ণয়;

 

-ফসলের মাঠে পানির বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়নে কার্যক্রম (ডিজাইন, নির্মাণ ও উন্নত পানি বিতরণ ব্যবস্থা) গ্রহণ ও বাস্তবায়ন;

 

-অঞ্চলভিত্তিক ফসলে বৃষ্টির পানি এবং সম্পুরক সেচের সুষ্ঠু ও সর্বোত্তম ব্যবস্থা নিশ্চিত করার কার্যক্রম গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন;

 

-কৃষক পর্যায়ে বৃষ্টি ও সেচের পানির সমন্বিত ও পরিপুরক ব্যবহারের সর্বোত্তম পন্থা নিশ্চিত করা এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহায়তায় মানানসই শস্য পঞ্জিকা তৈরী;

 

-সেচ ব্যবস্থা সম্প্রসারণের জন্য কৃষকদের ব্যাপকভিত্তিক প্রশিক্ষন প্রদান;

(৫)

সেচ এলাকা বৃদ্ধির জন্য স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প মূল্যায়ন ও দিকনির্দেশনা প্রদান;

(৬)

সমন্বিত আঞ্চলিক কৃষি উন্নয়নে সেচ ব্যবস্থাপনা ও বাস্তবায়ন:

 

-কৃষক সংঘের সংগে সমন্বয় ও সহযোগিতার মাধ্যমে সেচ উন্নয়ন ও সেচ কার্যক্রম সম্প্রসারণ;

(৭)

সেচ ব্যবস্থাপনার জরুরী সেবা প্রদান।

ছবি নাম মোবাইল

ছবি নাম মোবাইল

অর্থ বছর উপজেলার নাম সংসদীয় এলাকা নাম ক্ষুদ্রসেচ কার্যক্রমের নাম একক লক্ষ্যমাত্রা অগ্রগতি
২০১৪-১৫ গাজীপুর সদর গাজীপুর ৩ ও ৫ খাল পূনঃখনন কিমি. ০ ০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ১ ১
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ২ (১১০০ মিঃ) ২ (১১০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১৩ ১৩
কালিয়াকৈর গাজীপুর ১ খাল পূনঃখনন কিমি. ০ ০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ১ ১
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ২ (১৬০০ মিঃ) ২ (১৬০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১৫ ১৫
শ্রীপুর গাজীপুর ৩ খাল পূনঃখনন কিমি. ১.৫ ১.৫
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ৩ ৩
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৭ (৫৮০০ মিঃ) ৭ (৫৮০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৩৩ ৩৩
কাপাসিয়া গাজীপুর ৪ খাল পূনঃখনন কিমি. ৩ ৩
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ০ ০
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ১১ (১১০০০ মিঃ) ৮ (৮০০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৩৩ ৩৩
কালিগঞ্জ গাজীপুর ৫ খাল পূনঃখনন কিমি. ০ ০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ১ ১
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৯ (৫৮০০ মিঃ) ৯ (৫৮০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৭০ ৭০
২০১৩-১৪ গাজীপুর সদর গাজীপুর ৩ ও ৫ খাল পূনঃখনন কিমি. ৪.০ ৪.০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ২ ২
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ২ (১২০০ মিঃ) ২ (১২০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১২ ১২
কালিয়াকৈর গাজীপুর ১ খাল পূনঃখনন কিমি. ০ ০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ২ ২
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৩ (২২০০ মিঃ) ৩ (২২০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১৪ ১৪
শ্রীপুর গাজীপুর ৩ খাল পূনঃখনন কিমি. ৭.৩ ৭.৩
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ৪ ৪
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৩ (১৮০০ মিঃ) ৩ (১৮০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ২৪ ২৪
কাপাসিয়া গাজীপুর ৪ খাল পূনঃখনন কিমি. ৫.১ ৫.১
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ০ ০
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৮ (৮০০০ মিঃ) ৮ (৮০০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৩১ ৩১
কালিগঞ্জ গাজীপুর ৫ খাল পূনঃখনন কিমি. ৯.৭ ৯.৭
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ৪ ৪
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৬ (৪৪০০ মিঃ) ৬ (৪৪০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৬২ ৬২
২০১২-১৩ গাজীপুর সদর গাজীপুর ৩ ও ৫ খাল পূনঃখনন কিমি. ০ ০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ৪ ৪
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৪ (২৪০০ মিঃ) ৪ (২৪০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১২ ১২
কালিয়াকৈর গাজীপুর ১ খাল পূনঃখনন কিমি. ০ ০
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ০ ০
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ১ (১০০০ মিঃ) ১ (১০০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১০ ১০
শ্রীপুর গাজীপুর ৩ খাল পূনঃখনন কিমি. ৩.২ ৩.২
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ৪ ৪
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ১০ (৮০০০ মিঃ) ১০ (৮০০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ১০ ১০
কাপাসিয়া গাজীপুর ৪ খাল পূনঃখনন কিমি. ৬ ৬
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ০ ০
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ৪ (৪০০০ মিঃ) ৪ (৪০০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৩১ ৩১
কালিগঞ্জ গাজীপুর ৫ খাল পূনঃখনন কিমি. ৫ ৫
অচালু/অকেজো নলকূপ পুনর্বাসন সংখ্যা ২ ২
ভূগর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ সংখ্যা ১০ (৯২০০ মিঃ) ১০ (৯২০০ মিঃ)
সেচযন্ত্র ক্ষেত্রায়ন সংখ্যা ৬০ ৬০

সেচ ভবন, বিএডিসি,
টেকনগোপাড়া,ময়মনসিংহ রোড, চান্দনা,
গাজীপুর-১৭০২
ফোনঃ০২-৯২৯৪৩০৪
ইমেইলঃ badcgazipur@gmail.com